Breaking News
Home / অপরাধ / মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্যাথলজিষ্ট করোনার ভয়ে আত্মগোপনে  

মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্যাথলজিষ্ট করোনার ভয়ে আত্মগোপনে  

বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধিঃকরোনা সন্দেহকারী রোগীকে পরিক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহের কথা শুনে হাসপাতাল থেকে পালিয়েছে প্যাথলজি বিভাগের এক কর্মকর্তা। গত ৮দিন যাবত পালিয়ে  থাকা মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (এমটি) অনিমেষ সাহা না থাকায় বন্ধ রয়েছে প্যাথলজি বিভাগের পরিক্ষা-নিরীক্ষার সকল কার্যক্রম। আর তিনি পালিয়ে থাকায় দুর্ভোগে পড়েছে বর্তমানে  চিকিৎসাধীন রোগী ও বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা সাধারণ রোগীরা। তবে কাউকে না জানিয়ে সরকারের জরুরী সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান থেকে দীর্ঘ ১১দিন পালিয়ে থাকা এ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এখনও কোন ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে হাসপাতাল জুড়ে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।
খুলনা বিভাগের তথা দক্ষিণাঞ্চলের বৃহত্তম সমুদ্র বন্দর নগরী মোংলা উপজেলার প্রায় ২ লাখ জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ১৯৯৮ সালের ২৩ মে তৈরী করা হয় ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স । এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ২৫ জন চিকিৎসক থাকার নিয়ম থাকলেও আছে মাত্র মাত্র ১০/১২জন। এর মধ্যে ৫জন চিকিৎসক রীতিমত অফিস করছে আর বাকিরা আছে কাগজে-কলমে। এখানে প্যাথলজি বিভাগে ৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট থাকার স্থলে আছে মাত্র ১জন। সরকারের স্বাস্থ্য শাখার লোকবল কম থাকায় এ শাখায় দীর্ঘদিন যাবত একজন (এমটি) দিয়ে চলে আসছিল হাসপাতালের প্যাথলজি বিভাগের কার্যক্রম। কিন্ত সারা দেশব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে দেশের সকল স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসকসহ অন্যান্য শাখার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর ছিল কড়া নির্দেশনা। তার মধ্যেও বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকারের কঠোর নির্দেশনা থাকা সত্বেও মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সর  এ শাখার একমাত্র মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অনিমেষ সাহা অফিসে আসা বন্ধ করে দেয়। অফিসে আসলেও তিনি প্যাথলজি বিভাগে না বসে অন্যত্র ঘুরে বেড়াতেন বলে অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে।
গত ৭ এপ্রিল মোংলা পৌর শহরের খানজাহান আলী সড়কের হাকিম হাওলাদারের ভাড়াটিয়া শাহিনুর আক্তার নামের এক গৃহবধূ করোনা ভাইরাস সন্দেহে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের  চিকিৎসকদের নির্দেশনা দেন উপজেলা প্রশাসন। পাশাপাশি শাহিনুর আক্তারকে আইসোলেশনে রেখে নমুনা সংগ্রহ করে তা খুলনা মেডিকেলে পাঠানোর জন্য বলে। এ খবর শুনেই মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (এমটি) কর্মকর্তা অনিমেষ সাহা হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। দীর্ঘ ১১দিন প্যাথলোজি বিভাগ বন্ধ থাকায় দুর দুরান্ত থেকে আসা রোগীরা পরছে চরম বিপাকে। আত্মগোপনে থাকা অনিমেষের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা কর্তৃপক্ষ বলেও স্থনীয়দের অভিযোগ।
মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জীবিতেষ বিশ্বাস জানান, কয়েকদিন যাবত প্যাথলোজিস্ট অনিমেষ সাহা হাসপাতালে অনুপস্থিত। সম্ভবত করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত বিষয় একটু ভীত হয়ে পড়েছে। মোবাইল ফোনও বন্ধ, তবে তার স্ত্রীর ফোনে যোগাযোগ করা হচ্ছে।
এব্যাপারে বাগেরহাট জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ হুমায়ুন কবির বলেন, ১১দিন পালিয়ে থাকার ঘটনাটি তার জানা নাই, তবে ১৬ এপ্রিল দুপুরে অনিমেষ শাহার স্বেচ্ছায় অবসরের একটি আবেদন পেয়েছি। স্বেচ্ছায় অবসরের সময় হয়েছে কিনা বা সরকারের এ জাতীয় দুর্যোগ মুহুর্তে পালিয়ে থাকার বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে, তারাই ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।
মোংলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার ও জেলা পরিষদের সদস্য শেখ আঃ রহমান  জানান, অনিমেষ সাহা নিয়মানুযায়ী স্বেচ্ছায় অবসরে যেতে পারে কিন্ত দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক মানুষের জন্য তার হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করতে হবে। যদি না করে কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানাবো আমরা।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের  মেডিকেল টেনোলজিষ্ট অনিমেষ শাহার মুঠো ফোনে বার বার চেষ্টা করা হলেও তার (০১৭১৬৪২৩০০২)ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
SK Computer, Godagari, Rajshahi. 01721031894

About জনতার কথা ডেস্ক

Check Also

নওগাঁর আত্রাইয়ে করোনা প্রতিরোধে ৩য় দিনে সর্বাত্নক লকডাউন পালিত

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাইয়ে করোনা প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সর্বাত্নক লকডাউন পালিত হচ্ছে, গত বুধবার সকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *