Breaking News
Home / অন্যান্য / কোভিড-১৯ / বাস্তব জগতের সুপার হিরোকাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ

বাস্তব জগতের সুপার হিরোকাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ

মহানগর প্রতিনিধি:নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলায় যখন মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে, তখন একের পর এক সেই মরদেহ সৎকার করছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তিদের লাশ যখন কেউ সৎকারে এগিয়ে আসছিলেন না; তখন এগিয়ে আসেন তিনি। তিনি লাশ দাফন করার কাজে একটি টিম গঠন করেন। এই টিমে রয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ইমামসহ বেশ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক।
এই টিমে যারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন, তারা হলেন-  আশরাফুজ্জামান হিরা, আরী সাবাব, নাজমুল কবীর নাহিদ, আনোয়ার হোসেন, হাফেজ শিব্বির, সুমন, শফিউল্লাহ, রফিক, আক্তার হোসেন, আরেফিন, রাফি, জুনায়েদ, লিটন প্রমুখ। এই কাজের জন্য তারা মানুষের প্রশংসা পাচ্ছেন। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী এমন উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন।
কাউন্সিলর খোরশেদের নেতৃত্বে এ পর্যন্ত ৩৪টি মরদেহ সৎকার করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ জন হিন্দু ও ২৮ জন মুসলমান সম্প্রদায়ের।
৩৪ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে ২৯ জনের।  বাকি ৫ জন বয়স্ক ব্যক্তির বিভিন্ন রোগে মৃত্যু হলেও করোনা আক্রান্ত সন্দেহে ভয়ে আত্মীয়-স্বজনরা এগিয়ে আসেনি। কাউন্সিলর খোরশেদ এসব মরদেহের সৎকারের ব্যবস্থা করেন।
গত ৩০ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নারায়ণগঞ্জে প্রথম এক নারীর মৃত্যুর পর একের পর এক মৃত্যু হতে থাকে। তখন মরদেহ দাফন কিংবা দাহ করলে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা আছে- এমন ভয় ছড়িয়ে পড়লে মৃত ব্যক্তির আত্মীয়-স্বজন বা  পাড়া-প্রতিবেশীরা মরদেহ সৎকারে এগিয়ে আসেনি। তখন মৃত ব্যক্তিদের সৎকারের ঘোষণা দিয়ে মাঠে নামেন কাউন্সিলর খোরশেদ।
তিনি চিকিৎসকদের পরামর্শে করোনায় মৃত ব্যক্তিদের লাশ সৎকারের নিয়ম রপ্ত করেন এবং তার দলের সদস্যদের এ বিষয়ে ধারণা দেন। তিনি এ কাজে ব্যবহারের জন্য পিপিই, মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাবসসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও মরদেহ বহনের গাড়ির ব্যবস্থ্যা করেন। এরপর নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন ও সিটি কর্পোরেশনের কাছে মরদেহ সৎকারের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেন। দুটি প্রতিষ্ঠান অনুমতি দেয়। এরপর থেকে মরদেহ দাফন বা দাহ করে যাচ্ছেন তারা।
করোনায় মৃতদের লাশ দাফন করলে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা আছে- সেটা বিবেচনায় নিয়ে একবার নিজের নমুনা পরীক্ষা করিয়েছেন খোরশেদ।  এর রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ এসেছে।
এরপর আরো মনবল নিয়ে মরদেহ সৎকার করে যাচ্ছেন তিনি। এ কাজ করতে গিয়ে স্ত্রী-সন্তানদের থেকে পৃথক থাকতে হচ্ছে তাকে। ব্যক্তি জীবনেও কঠিন সময় পার করছেন। সতর্কতা অবলম্বন করে তিনি নিজ বাড়িতে আলাদা একটি কক্ষে বসবাস করছেন খোরশেদ।
নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ডের তিনবার নির্বাচিত কাউন্সিলর খোরশেদ রাইজিংবিডি’কে বলেন, মানবতার তাগিদে তিনি ও তার দলের সদস্যরা এ কাজে এগিয়ে এসেছেন।
তিনি জানান, এর আগে করোনা সংক্রমণ রোধে বাজারে যখন হ্যান্ড স্যানিটাইজার সংকট সৃষ্টি হয়, তখন ৬০ হাজার হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করে নিজ ওয়ার্ডে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিতরণ করে মানুষকে সচেতন করেছেন।
‘‘যত দিন আমি ও আমার দলের সদস্যরা সুস্থ থাকবো, ততোদিন মরদেহ সৎকার চালিয়ে যাবো।’’- বলে জানিয়েছেন খোরশেদ।
SK Computer, Godagari, Rajshahi. 01721031894

About জনতার কথা ডেস্ক

Check Also

রাজশাহীতে প্রতারক ও মানব পাচারকারী চক্রের ৩ সদস্য আটক

মো.পাভেল ইসলাম নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী নগরীতে প্রতারক ও মানব পাচারকারী চক্রের তিনজন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *