Breaking News
Home / জেলার সংবাদ / নওগাঁয় কোরবানীর উদ্বৃত্ত পশু প্রতিপালন

নওগাঁয় কোরবানীর উদ্বৃত্ত পশু প্রতিপালন

 

নওগাঁয় কোরবানীর উদ্বৃত্ত পশু প্রতিপালন করা হয়েছেনওগাঁয় কোরবানীর উদ্বৃত্ত পশু প্রতিপালন করা হয়েছে জেলায় এ বছর ৩ লাখ ৮০ হাজার ৪শ ৯১টি পশু পালন, চাহিদ প্রায় ৩ লাখ

কামাল উদ্দিন টগর,নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁ জেলায় এ বছর ৩ লাখ ৮০ হাজার ৪শ ৯১টি কোরবানীর পশু প্রতিপালন করা হয়েছে। জেলায় চলতি বছর চাহিদা রয়েছে ৩ লাখ পশুর। সে হিসেবে পশু উৎপাদনে নওগাঁ জেলা উদ্বৃত্ত।

জেলার চাহিদা মিটিয়ে এ জেলা থেকে কোরবানীর পশু বরাবরই ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লাসহ দেশের অন্যান্য জেলায় সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

জেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মোঃ হেলাল হোসেন জানিয়েছেন আসন্ন কোরবানীকে সামনে রেখে জেলার ১১টি উপজেলায় মোট ৩১ হাজার

৩শ ৪০টি খামারে এসব পশু প্রতিপালন করা হয়েছে। কোরবানীর পশুর মধ্যে রয়েছে ৯৮ হাজার ৮শ, ৮৩টি ষাড়, ৩২ হাজার ৪শ ২৯টি বলদ, ৩৬ হাজার ১শ ১৫টি গাভী, ৬ হাজার ৯শ ৬০টি মহিষ। এ ছাড়াও ছাগল রয়েছে ১ লাখ ৭৪

হাজার ৪শ ৩৭টি, ভেড়া রয়েছে ২৫ হাজার ৬৫১টি এবং অন্যান্য রয়েছে ৪২৪টি।

জেলা প্রাণীসম্পদ বিভাগের তথ্য মতে উপজেলা ভিত্তিক খামাড়, ষাড়, বলদ এবং গাভীর সংখ্যা হচ্ছে নওগাঁ সদর উপজেলায়৩৬৩০টি খামাড়ে ১৩ হাজার ৩শ ৮২টি ষাড়, ২ হাজার ৫শ ৯১টি বলদ ও ২ হাজার ৫শ ৭৭টি গাভী। রাননীনগর উপজেলায় ১৮৫০টি খামাড়ে ৭ হাজার ১শ ১১টি ষাড়, ৮১৪টি বলদ ও ৩ হাজার ১শ ৬৯টি গাভী। আত্রাই উপজেলায় ১১২৪৬টি খামাড়ে ৫ হাজার ৭শ ৮২টি ষাড়, ৮১৬টি বলদ ও ৯৭৪টি গাভী। বদলগাছি উপজেলায় ৩৯১৮টি খামাড়ে ৬ হাজার ২শ ৬৮টি ষাড়, ১ হাজার ৬শ বলদ ও ৩ হাজার ৬শ ৮৩টি গাভী। মহাদেবপুর উপজেলায় ১২৪০টি খামাড়ে ৮ হাজার ২শ ২৯টি ষাড়, ১ হাজার ৪শ ১৬টি বলদ ও

২ হাজার ৮টি গাভী। পত্নীতলা উপজেলায় ১৮০৫টি খামাড়ে ৭ হাজার ১শ ৩৩টি ষাড়, ১ হাজার ৮শ ৩৫টি বলদ ও ২ হাজার ২শ ৫৮টি গাভী। ধামইরহাট

উপজেলায় ২৪৭৮টি খামাড়ে ১১ হাজার ৯শ ৫৩টি ষাড়, ৭ হাজার ১শ ৮৭টি বলদ ও ৬ হাজার ৫শ ১৬টি গাভী। সাপাহার উপজেলায় ৩৭৯২টি খামাড়ে ৭ হাজার ১৭টি ষাড়, ৩ হাজার ৩শ ২৬টি বলদ ও ২ হাজার ৪শ ৩৮টি গাভী। পোরশা উপজেলায় ২০৫৯টি খামাড়ে ৬ হাজার ৮শ ৬৬টি ষাড়, ৩ হাজার ৯টি বলদ ও ২ হাজার ৭শ ২৭টি গাভী। নিয়ামতপুর উপজেলায় ১৫৩৭টি খামাড়ে ৬ হাজার ৪৪টি ষাড়, ১ হাজার ৯শ ৫টি বলদ ও ১ হাজার ৫শ ৭৫টি গাভী এবং মান্দা উপজেলায় ৭৭৮৫টি খামাড়ে ১৮ হাজার ৭শ ৯৮টি ষাড়, ৬ হাজার ৮শ ৪০টি বলদ ও ৮হাজার ৯৬টি গাভী।

জেলার ভারপ্রাপ্ত প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা মোঃ হেলাল হোসেন বলেছেন দেশে লকডাউন চললেও জেলা প্রাণীসম্পদ অফিস থেকে পশু ক্রয় বিক্রয় নামে অনলাইন নামে অনলাইন ভিত্তিক একটি মোবাইল মার্কেটিং ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এই অ্যাপে জেলার বিভিন্ন খামাড়ীদের ঠিকানা, গরুর ছবি, গরুর আনুমানিক ওজন, মূল্য ইত্যাদি উল্লেখ করে পোষ্ট দেওয়া হচ্ছে। এতে মোটামুটি ভালোই

সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। প্রতিনিয়ত গরু, ছাগল, ভেড়া ইত্যাদি বিক্রি হচ্ছে।

SK Computer, Godagari, Rajshahi. 01721031894

About জনতার কথা ডেস্ক

Check Also

বৃক্ষসখা সুন্দরগঞ্জ’র উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ

গাইবান্ধা সংবাদদাতা শেখ মোঃ সাইফুল ইসলাম: গাছ লাগাই, প্রকৃতি সাজাই, পরিবেশ বাঁচাই, এই শ্লোগানকে ধারণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *