Breaking News
Home / অন্যান্য / কোভিড-১৯ / কুষ্টিয়ায় গত দুই মাসে করোনা লক্ষণে ১১,জনের মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় গত দুই মাসে করোনা লক্ষণে ১১,জনের মৃত্যু

শাহীন আলম লিটন কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ায় গত দুই মাসে করোনা লক্ষণে মৃত্যু হয়েছে ১১জনের। এদের মধ্যে দুইজন নারী ও ৯জন পুরুষ। মৃত:দের কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১জন, কুমারখালী-৩, ভেড়ামারা-৩, দৌলতপুর-২ ও মিরপুর উপজেলার-২জন। দুই নারীর মধ্যে ১জন দৌতলপুর এবং অপরজন ভেড়ামারা উপজেলার বাসিন্দা।
জানা যায়, কুষ্টিয়ায় সর্বপ্রথম করোনা উপসর্গ নিয়ে ৩০ মার্চ সোমবার সকালে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে মারা যান কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাস এলাকার এক ইজিবাইক চালক। আইইডিসিআর এর নিয়ম মেনে তার মরদেহটি দাফন করা হয়েছে। ঐ দিন দুপুরে ভেড়ামারার ফারাকপুর গোরস্থানে দাফন করা হয়। ঐ ব্যক্তির গ্রামের বাড়ী ভেড়ামারা পৌরসভার নওদাপাড়া এলাকায়।
০২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে সালেহীন (৩৪) নামের এক নৌ-বাহিনীর সদস্যের মৃত্যু হয়। সালেহীন খুলনা নৌ-ওয়ার্ডে কমরত ছিলেন।
১০ এপ্রিল বিকেল ৩টায় নিজ বাড়ীতে জ্বর-শর্দি ও শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার মৃত্তিকাপাড়ার আশরাফুল ইসলাম (৪৫)।
এদিকে ১২ এপ্রিল রোববার করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি থাকা ময়না খাতুন (৪৩) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়। পরিবারের দাবী বিনা চিকিৎসায় তার মৃত্যু হয়। সে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের মহদীপুর ঈদগাহ পাড়া এলাকার আব্দুর রহিমের স্ত্রী। পরে তার নমুনা পরীক্ষা করে করোনা নেগেটিভ পেয়েছিলো।
১৫ এপ্রিল বুধবার দুপুরে জ্বর-বোমি ও করোনা উপসর্গ নিয়ে দৌলতপুর উপজেলার শাওন (০৩) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়। শাওন দৌলতপুর উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের বৈরাগীরচর গ্রামের জুয়েল প্রামানিকের ছেলে।
টানা দশদিন আইসোলেশন ওয়ার্ডে থাকার পরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ১৫ এপ্রিল বুধবার সন্ধ্যায় শিল্পী খাতুন (২৮) নামের এক নারীর মৃত্যু হয়। জেনারেল হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মীরা তাকে শহরের কোর্ট ষ্টেশন চত্বর থেকে নিয়ে এসে হাসপাতালে ভর্তি করেছিলো।
কুষ্টিয়ার কুমারখালী হাসপাতালে ১৯ এপ্রিল রোববার সকালে করোনা উপসর্গ নিয়ে ষাটোর্ধ্য এক রোগীর মৃত্যু।
সর্বশেষ ২৯ মে শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার ধরমপুর গোরস্থানপাড়ায় মেয়ের বাড়ীতে বেড়াতে এসে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৬৫ বছর বয়সী এক অবসরপ্রাপ্ত নার্সের মৃত্যু হয়। তিনি ঢাকায় থাকতেন।
কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন ডা: এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, করোনা লক্ষন নিয়ে মৃত্যুর বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক বিবেচনায় নেয়ার বিষয় না হওয়ায় কেবলমাত্র স্থানীয়ভাবে এসব সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার কারণে মৃত:দের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ আসে। সেকারণে এদের সম্পর্কে আর বিস্তারিত কোন তথ্য আমাদের সংগ্রহে নেই।
ঈদের আগ পর্যন্ত কুষ্টিয়া জেলার করোনা ঝুকির মাত্রা অনেকটাই সহনীয় থাকলেও ঈদের পরদিন থেকে সনাক্তদের ক্রমবৃদ্ধির সংখ্যা জেলার স্বাস্থ্য বিভাগকে চরম ভাবে শংকাগ্রস্ত করে তুলেছে বলেও জানালেন এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা
SK Computer, Godagari, Rajshahi. 01721031894

About জনতার কথা ডেস্ক

Check Also

রাজশাহীতে প্রথম দিনই সাড়া ফেলেছে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন

মো.পাভেল ইসলাম নিজস্ব প্রতিবেদক: গত বছর চাহিদা না থাকায় তেমন সাড়া মেলেনি ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *