Breaking News
Home / চাঁপাই-নবাবগঞ্জ / আ. লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে পৌর কৃষকলীগ সভাপতি টুটুল ও সেক্রেটারি আশরাফ এর বাণী

আ. লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে পৌর কৃষকলীগ সভাপতি টুটুল ও সেক্রেটারি আশরাফ এর বাণী

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর কৃষক লীগের সভাপতি, সাবেক ছাত্রনেতা মেসবাউল হক টুটুল ও সাধারণ সম্পাদক আলী আশরাফ বাণী দিয়েছেন।

আমাদের প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শুভ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ কৃষকলীগ চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর শাখার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন গ্রহণ করুন।

এ অঞ্চলের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এক বর্ণাঢ্য বীরত্বগাঁথা রচনা করে ২৩ শে জুন। পথচলা শুরু হয় আওয়ামী লীগের।

আপনারা জানেন, সাম্প্রদায়িক দ্বি-জাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান নামের এক কৃত্রিম রাষ্ট্রের জন্ম দেয়া হয়। বাংলাদেশ কার্যত পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর নতুন ধরনের উপনিবেশে পরিণত হয়। শুরু হয় ঔপনিবেশিক আমলের মতোই শোষণ-বঞ্চনা-বৈষম্য।

প্রথমেই তারা বাংলা ভাষা ও বাঙালি জাতিসত্তার মর্যাদাকে অস্বীকৃতি জানায়। ফলে বাঙালির মোহভঙ্গ হতে শুরু করে। কিন্তু চূড়ান্ত মুক্তির পথ দেখাবে কে? টুঙ্গিপাড়ার দ্রোহী ছাত্র-যুব নেতা শেখ মুজিব কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েশন ডিগ্রী নিয়ে ঢাকায় ফিরে উচ্চারণ করলেন-“আমি বাঙালি, বাংলা আমার ভাষা, বাংলা আমার দেশ”। শুরু হলো বাঙালির আত্ম-আবিষ্কারের পালা। শ্লোগান উঠল-“রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই- দিতে হবে”।

তারপর দীর্ঘ ২৩ বছরের পাকিস্তানি মিলিটারি উপনিবেশিক শক্তির শোষণ-বঞ্চনা বিরোধী লড়াই, জেল জুলুম তোয়াক্কা না করে বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাঙালির নিজস্ব স্বাধীন জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে পরিণত হয়।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের ভেতর দিয়ে বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটল স্বাধীন-সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের। যুদ্ধ বিধস্ত দেশ পুনর্গঠন ও পুনর্বাসন কাজ শেষ করে যখন দেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছিল ঠিক সেই মুহূর্তে মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শত্রুরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করে।

হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, এম মনসুর আলী ও এএইচএম কামারুজ্জামানকে। ঘটনাক্রমে বিদেশে অবস্থান করায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

সামরিক স্বৈরাচার জিয়া-এরশাদ চেয়েছিল আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে আবার পাকিস্তানি আদলে বাংলাদেশকে একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করতে। এই লক্ষে তারা মুক্তিযুদ্ধের ভিতর দিয়ে অর্জিত সংবিধান পদদলিত করে বাঙালি জাতির গৌরবোজ্জ্বল আত্মপরিচয় বিসর্জন দেয়ার চক্রান্তে মেতে ওঠে।

১৯৮১ সালের ১৭ মে ৬ বছরের বাধ্যতামূলক প্রবাস জীবন থেকে ফিরে এসে গর্জে ওঠলেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের হাল ধরলেন তিনি। জননেত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও দূরদর্শী নেতৃত্বে পারিচালিত দীর্ঘ ২১ বছরের বীরত্বপূর্ণ গণতান্ত্রিক সংগ্রামের মাধ্যমে স্বৈরাচারের পতন ঘটিয়ে ১৯৯৬ সালে পুনরায় প্রথমবার, ২০০৮ সালে দ্বিতীয়বার এবং ৫ জানুয়ারি ২০১৪ তৃতীয়বার আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়। অতীতের পুঞ্জিভূত সমস্যা, ক্লেদ ও দুঃশাসনের অবসান ঘটিয়ে বাংলাদেশকে পুনরায় উন্নয়নের গতিপথে ফিরিয়ে আনেন তিনি।

আইনের শাসন কায়েম ও জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করার লক্ষে প্রথমে জাতির পিতার হত্যার বিচার করেন। বিচার সম্পন্ন হয় জাতীয় চার নেতা হত্যার। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী পাশ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারা পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেন। নির্মূল করেন জঙ্গিবাদ। অব্যাহত আছে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার।

দেশ আজ খাদ্যে আত্মনির্ভরশীল, মাথা প্রতি আয় ১১০০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে ২৭ কোটি বই দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করা হয়েছে। নতুন করে ১ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। দারিদ্র্য হার কমেছে ১০ শতাংশ। স্বাস্থ্যখাতে অর্জিত হয়েছে বিস্ময়কর উন্নতি।

অবকাঠামো উন্নয়ন যোগাযোগ ব্যবস্থায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধন করছে; নির্মিত হচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। গড়ে উঠছে ডিজিটাল বাংলাদেশ। দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাবার লক্ষে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার প্রত্যয়ে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ।

আমাদের লক্ষ্য ২০২১ সালের মধ্যে দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতার অবসান ঘটিয়ে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। আমরা চাই ২০৪১ সালের মধ্যে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশকে এক উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে। আসুন, এই লক্ষ্য অর্জনে বঙ্গবন্ধু-কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ৭১ বছরের গৌরবোজ্জ্বল অগ্রযাত্রার পতাকা নিয়ে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যাই।

SK Computer, Godagari, Rajshahi. 01721031894

About জনতার কথা ডেস্ক

Check Also

ফুলবাড়ীতে অর্থের অভাবে বৃদ্ধার লাশ নিলো না পরিরার, দাফন করলো ছাত্রলীগ

মোঃআরিফুল ইসলাম,ফুলবাড়ী(কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মৃত্যু হওয়া এক বৃদ্ধার লাশ পরিবার নিতে অস্বীকৃতি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *