Breaking News
Home / অপরাধ / আমতলীতে যুবলীগ নেতার কাছে চাঁদা দাবি ও হত্যার চেষ্টায় মামলা

আমতলীতে যুবলীগ নেতার কাছে চাঁদা দাবি ও হত্যার চেষ্টায় মামলা

সাইফুল্লাহ নাসির,জেলা প্রতিনিধি,বরগুনাঃ
বরগুনার আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান এর ভাগ্নে যুবলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদের কাছে দাবিকৃত চাঁদার টাকা না পেয়ে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় আমতলী থানায় মামলা করা হয়েছে। আজ শনিবার আহত আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে ১৫ জনকে আসামী করে চাঁদা দাবি ও হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করেন।
দায়েরকৃত মামলা সুত্রে জানা গেছে,পৌর কাউন্সিলর জিএম মুসা ও তার সহযোগীরা পৌর মেয়র মতিয়ার রহমানের ভাগ্নে যুবলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদের কাছে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেন।এ টাকা দিতে অস্বীকার করে আজাদ। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জিএম মুসা ও তার সহযোগীরা যুবলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদকে গত ২১ শে মে রাতে কৌশলে ডেকে নিয়ে আমতলী ইউনিয়নের চলাভাংগা নামক স্হানে পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্য ধারালো অস্ত্র দিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে তার দুই হাতের বাহু,তালু,কব্জি,দু পায়ের হাটু,গোড়ালি সহ রগ কেটে দেয়।পরবর্তীতে তারা তাকে মৃত্যু ভেবে রাস্তার পাশে ফেলে রাখে।এ সময় আজাদের সাথে থাকা দুই লক্ষ টাকাও নিয়ে যায়। বিগত ২১ দিন আজাদ ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।এ ঘটনায় আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে শনিবার আমতলী থানায় পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিল জিএম মুসাকে প্রধান আসামি করে পনের জনের নামে চাঁদা দাবি ও হত্যার উদ্দেশ্য কুপিয়ে গুরুতর যখমের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন।মামলার অন্য আসামিরা হলেন,স্বেচ্ছাসেবক লীগের উপজেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন খান,উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জিএম ওসমানী হাসান,মোঃ আল ফাহাদ, মোঃ মতিন,মোঃ মালেক,মোঃ তানজিল,মোঃ রিয়াজ,মোঃ রুবেল, মোঃ আশিকুর রহমান আসলাম, মোঃ রায়হান,মোঃ মিরাজ মিয়া,মোঃ কবির,মোঃ সবুজ ও মোঃ হাসান। পুলিশ আসামি গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আমতলী থানার এসআই জি এম শাহাবুল বলেন,আসমী গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা চলছে।
আমতলী পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মতিয়ার রহমান বলেন,আমার ভাগ্নে,যুবলীগ কর্মী আবুল কালাম আজাদ এর কাছে জিএম মুসা সহ আসামীরা পাঁচ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবীকৃত চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় আমার ভাগ্নেকে কৌশলে ডেকে নিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে হাত ও পায়ের রগ কেটে দিয়েছে। আমি এ নির্মমতার শাস্তি দাবী করছি।
আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ আলম হাওলাদার বলেন,যুবলীগ নেতা আবুল কালাম আজাদকে কুপিয়ে আহতের ঘটনায় জিএম মুসাকে প্রধান আসামি করে ১৫ জনের নামে চাঁদা দাবি ও হত্যা চেষ্টা মামলা করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা চলছে।
SK Computer, Godagari, Rajshahi. 01721031894

About জনতার কথা ডেস্ক

Check Also

রাজশাহীতে প্রতারক ও মানব পাচারকারী চক্রের ৩ সদস্য আটক

মো.পাভেল ইসলাম নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী নগরীতে প্রতারক ও মানব পাচারকারী চক্রের তিনজন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *